পাকিস্তানকে হারিয়ে ইতিহাস গড়লো বাংলাদেশের নারীরা


নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত নারী বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো সুযোগ পেয়েছে বাংলাদেশ। সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে তুলে নিয়েছে বিশ্বকাপে প্রথম জয়। হ্যামিল্টনে আজ পাকিস্তান নারী ক্রিকেট দলকে ৯ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশের বাঘিনীরা।

ম্যাচ শেষে অধিনায়ক নিগার সুলতানা জানান, " এ অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মতো না।এটি বাংলাদেশের ক্রিকেটে একটি ঐতিহাসিক মুহুর্ত। আমরা পাকিস্তানকে কোয়ালিফায়ারে হারিয়ে, আমরা পাকিস্তানকে জানি। আমাদের মেয়েরা পরিশ্রম করেছে এবং  এই জয় আমাদেরকে আত্মবিশ্বাস যোগাবে।"

সেডন পার্কে টসে হেরে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। ৫০ ওভার শেষে ৭ উইকেটের বিনিময়ে ২৩৪ রান তুলতে সক্ষম হয় জ্যোতিরা। এটি বিশ্বকাপে তো বটেই ওয়ানডেতে বাংলাদেশ নারী দলের সর্বোচ্চ সংগ্রহ।

বল হাতে দুদার্ন্ত  তিন উইকেট নেওয়ার জন্য ম্যাচসেরা হয়েছেন ফাহিমা খাতুন। 



শুরুটা দুদার্ন্ত করে বাংলাদেশ। শামীমা সুলতানার সাথে ৩৭ রানের জুটি বাঁধেন শারমিন আক্তার সুপ্তা। শামীমাকে ১৭ রানে সাজঘরে ফেরান নীদা ডার। সুপ্তা, ফারজানা হক পিংকির সাথে জুটি বেঁধে এগিয়ে নিয়ে যান বাংলাদেশের ইংনিস। ব্যক্তিগত ৪৪ রানে সুপ্তা ফিরেন ওমাইয়া সোহেলের বলে বোল্ড হয়ে। তৃতীয় উইকেট জুটিতে পিংকির সাথে ৯৬ রানে জুটি বাঁধেন অধিনায়ক নিগার সুলতানা জ্যোতি। ফাতিমা সানার বলে এলবিডব্লু হয়ে ফিরে যাওয়ার আগে অধিনায়কের ব্যাট থেকে আসে ৪৬ রান। বাংলাদেশের হয়ে সবোর্চ্চ রান করেন ফারজানা হক পিংকি, ১১৫ বলে ৭১ রান করেন তিনি। এছাড়াও রুমানা আহমেদ ১৬, রিতু মনি ও সালমা খাতুন ১১ রান করেন।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী জুটি চোখ জুড়ানো ইংনিস খেলা শুরু করে পাকিস্তানের। নাহিদা খাতুনের সাথে ৯১ রানের জুটি বাঁধেন সিধরা আমিন। নাহিদাকে ৪৩ রানে  বোল্ড করে সাজঘরে ফেরান রুমানা আহমেদ। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে সিধরা আমিনকে সাথে নিয়ে ৬৪ রানের ইংনিস খেলেন অধিনায়ক বিসমাহ মারুফ। দলীয় ১৫৫ ও ব্যক্তিগত ৩১ রানে মারুফ আউট হলে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়তে শুরু করে পাকিস্তানের নারীরা। ১৮৩ রানের মাথায় আউট হন ব্যক্তিগত ১০ রানে আউট হন ওমাইয়া সোহেল। এরপর ফাহিমা খাতুনের  এক ওভারে তিন উইকেট হারিয়ে একরকমের ম্যাচের বাইরে চলে যায় পাকিস্তান। তবুও উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান সিধরা আমিনের সেঞ্চুরী স্বপ্ন দেখাচ্ছিলো পাকিস্তানকে। রিতু মণির রানআউটে ফিরে যান আমিন, ভেংগে যায় পাকিস্তানের জয় স্বপ্ন।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিলো ১৬ রান। নাহিদা আক্তারের শেষ ওভারে ৬ রানের বেশি তুলতে না পারলে নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ওডিআই বিশ্বকাপে জয় তুলে নিলো বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল।

এই জয়ে ২ পয়েন্ট নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান এখন ৬ এ। ৮ দল নিয়ে শুরু হওয়া গ্রুপ পর্বের রাউন্ড শেষে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ ৪ দল সেমিফাইনাল খেলবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ