৪ রানের জন্য স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের নারীদের





নিউজিল্যান্ডের মাউন্ট মঙ্গানুয়েই মহিলা ক্রিকেট বিশ্বকাপে ওয়েস্ট উইন্ডিজের কাছে ৪ রানে হেরেছে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। উইন্ডিজের দেওয়া ১৪১ রানের টার্গেট পেরুতে পারে নি বাংলার বাঘিনীরা।

টসে জিতে প্রথমে বল করার সিদ্ধান্ত নেয় টাইগ্রেস অধিনায়ক নিগার সুলতানা জ্যোতি। ২৯ রানের পার্টনারশিপে শুরু করলেও বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে একের পর এক উইকেট হারাতে শুরু করে ওয়েস্ট উইন্ডিজ নারী ক্রিকেট দল। নবম ওভারে ওপেনার ডটিনকে ১৭ ফেরান পেসার জাহানারা আলম। দলীয় রানের সাথে ১১ রান যুক্ত হতে না হতেই আরেক ওপেনার ম্যাথিউসকে ব্যক্তিগত ১৮ রানে ফেরান নাহিদা আক্তার। ৪৮ রানের মাথায় টেইলরকে বোল্ড করে নাহিদা, পরের ওভারের প্রথম বলে উইলিয়ামস নিজের শিকার বানান সালমা খাতুন। তবে ব্যাট হাতে একা লড়ে যান ক্যাম্পবেল। অপরাজিত থাকে ৫৩ রানে। একপাশ আগলে রাখেন তিনি যদি অপরপাশে সঙ্গ দেওয়ার মতো কেউ ছিলো না।

রান আউট যে নিশ্চিত সেটা বুঝাচ্ছেন বাংলাদেশী ফিল্ডার। ছবিঃ সংগ্রহীত

চেডিন ন্যাশনকে রান আউট করে সাজঘরে ফেরান ফারজানা হক। রানের খাতা খোলার আগে অ্যালিনকে ফেরান রুমানা, ১ রানে হেনরিকে ফেরান সালমা খাতুন। ৮ম উইকেটে এফেই ফ্লেচারকে সাথে নিয়ে ৩২ রানের পার্টনারশিপ গড়েন ক্যাম্পবেল। ১৭ রানে যখন রিতু মণির বলে ফ্লেচার ফিরেন তখন উইন্ডিজের সংগ্রহ ১০২। নবম উইকেট জুটিতে র‍্যামহ্যারাকে সাথে নিয়ে ক্যাম্পবেল তুলেন ৩৬ রান। রান আউট হয়ে র‍্যামহ্যারাক ফেরার আগে খেলা শেষ হওয়ার ১ বল বাকি ছিলো। ১১তম ব্যাটার কন্নেল শেষ বলে ২ রান নিয়ে সংগ্রহ ১৪০ পর্যন্ত নিয়ে যায়।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১ম ওভারেই বাংলাদেশ হারায় ওপেনার শামীমাকে। ম্যাথিউসের বলে এলবিডব্লু হয়ে সাজঘরে ফিরেন তিনি। সেখান থেকে ওপেনার সারমিন সুপ্তা ফারজানা হক পিংকিকে নিয়ে ২৯ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। ম্যাথিউসের শিকার হওয়ার আগে সারমিন সুপ্তা করেন ১৭ রান। অধিনায়কের সাথে পিংকি ৩০ রানের আরেকটি জুটি গড়েন। ফ্লেচারের বলে আউট হওয়ার আগে পিংকি করেন ২৩ রান। ৬০ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ ভালো অবস্থানে ছিলো। কিন্তু এফেই ফ্লেচারের এক ওভারে লন্ডভন্ড হয়ে যায় বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনআপ। পরপর দুই বলে ফিরেন রিতু মণি ও রুমানা আহমেদ। তবুও ভরসার ছিলো অধিনায়ক তখনও ক্রিজে ছিলেন। ৮৫ রানের মাথায় তিনিও আউট হয়ে ফিরেন। ব্যক্তিগত ২৫ রানে জ্যোতি ফিরার ২ বলের মধ্যে ফিরেন ফাহিমা খাতুন। নাহিদার সাথে ২৫ রানের পার্টনারশিপ করে আশা দেখাচ্ছিলো সালমা খাতুন। 

শেষ পর্যন্ত চেষ্টা করে গেছেন তবুও জেতাতে পারে নি নাহিদা। ছবিঃ ফেসবুক

স্টিফেনি টেইলরের বলে যখন সালমা ফিরলেন তখনও জয়ের জন্য ৩১ রানের প্রয়োজন ছিলো বাংলাদেশের। সেখান থেকে লড়ে গেছেন নাহিদা। জাহানারাকে নিয়ে নবম উইকেট জুটিতে ১২ রান তুলেন। দশম উইকেটে ১৪ রান তুলতে সক্ষম হয়। টেইলরের বলে বোল্ড হয়ে ফেরা ফারিহা যদি স্ট্রাইক দিতে পারতো নাহিদাকে তাহলে হয়তো শেষ চেষ্টা করতে পারতো নাহিদা।

উইন্ডিজের হয়ে ৩ টি করে উইকেট নেন এফেই ফ্লেচার ও স্টিফেনি টেইলর। ৪ টি উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা নির্বাচিত হয়েছেন ম্যাথিউস।

এই হারে বাংলাদেশ নেমে গেলো পয়েন্ট টেবিলের ৭ নম্বরে।শীর্ষ ৪ দল খেলবে সেমিফাইনালে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ